চাঁদাবাজির শিকার হলে কি করবেন?

সর্বশেষ আপডেট সেপ্টেম্বর ০৮, ২০১৬, বৃহস্পতিবার

ছবিসূত্র : ইন্টারনেট থেকে প্রাপ্ত

সেবার সংক্ষিপ্ত বিবরণ:

চাঁদাবাজির মত অপরাধ আমাদের সমাজে এখন সাধারণ সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। এমন মানুষ খুব কমই আছেন যিনি জীবনের কোন না সময় চাঁদাবাজির শিকার হননি। এলাকার সন্ত্রাসীরা বা এমনকি কোন কোন রাজনৈতিক দলের নেতারাও সাধারণ মানুষকে জিম্মি করে চাঁদাবাজি করে থাকে। চাঁদা না দিলে জীবন নাশসহ নানা ধরনের ক্ষতির সম্ভাবনা থাকে। কেউ চাঁদা চাইলে ভয় পেয়ে তথ্য গোপন না করে বিষয়টি যত তাড়াতাড়ি সম্ভব পুলিশকে জানায়ে দিন। পুলিশের এই সেবার মাধ্যমে আপনি চাঁদাবাজদের হাত থেকে রক্ষা পেতে পারেন। পুলিশ তদন্তের মাধ্যমে চাঁদাবাজকে চিহ্নিত করে তার বিচার এবং আবেদনকারীর নিরাপত্তা প্রদানে সাহায্য করবে।

সেবার সুবিধা:

  • চাঁদাবাজির মতো অপরাধ সংঘটিত হতে পারে না
  • চাঁদাবাজদের হাত থেকে রক্ষা পাওয়া যায় 
  • পুলিশ নাগরিক সেবা নিশ্চিত করে 
  • জানমালের নিরাপত্তা পাওয়া যায়
  • চাঁদাবাজের বিচার করে সমাজে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করা যায়
  • দেশ ও সমাজ চাঁদাবাজ মুক্ত থাকে

প্রক্রিয়া:

 

কেউ আপনার কাছে চাঁদা চাইলে ভয় না পেয়ে বা তথ্য গোপন না করে থানায় গিয়ে জিডি করুন। আবার জোর করে কেউ চাঁদা আদায় করলে অথবা চাঁদা না দেয়ার কারনে কোন ক্ষতি করলে উপযুক্ত প্রমাণসহ মামলা করতে হবে। পুলিশ তদন্ত করে আবেদনকারীর এজাহারের ভিত্তিতে সত্যতা পেলে আসামীর বিরুদ্ধে চার্জশীট দাখিল করবে। তারপর বিচারক প্রক্রিয়া শুরু হবে।

 

সেবা প্রাপ্তির যোগ্যতা      :  বাংলাদেশের যে কোন নাগরিক

প্রয়োজনীয় কাগজপত্র       :  আবেদন পত্র

প্রয়োজনীয় খরচ               :  বিনামূল্যে এই সেবা প্রদান করা হয়

প্রয়োজনীয় সময়              :  যত দ্রুত সম্ভব

কাজ শুরু হবে                 :   নিকটস্থ থানা

আবেদনের সময়               :   সারা বছর যে কোন সময়

দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা                        :   ওসি, এসআই/এএসআই

সেবা না পেলে কোথায় যাবেন           :  সার্কেল এ এস পি

বিস্তারিত তথ্যের জন্য                    :  ১০০

প্রয়োজনীয় ওয়েবসাইট                 : http://www.police.gov.bd