গনোরিয়া কি, কেন হয়, লক্ষণ ও প্রতিকার কি

সর্বশেষ আপডেট অক্টোবর ০৪, ২০১৬, মঙ্গলবার

ছবিসূত্র : ইন্টারনেট থেকে প্রাপ্ত

গনোরিয়াঃ গনোরিয়া ব্যাকটেরিয়া দ্বারা সংক্রামিত একটি যৌন রোগ৷ সাধারণত মূত্রনালি, পায়ুপথ, মুখগহ্বর এবং চোখ গনোরিয়ার জীবাণু দ্বারা সংক্রমিত হতে পারে৷ এই রোগ সাধারণত যৌনমিলন থেকে ছড়ায় এবং পুরুষ ও মহিলা উভয়েই আক্রান্ত হতে পারে৷

কারণ:
এক বিশেষ ধরনের ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণে এই রোগ হয়৷
 
গনোরিয়া রোগের লক্ষণঃ
পুরুষের ক্ষেত্রে
•    মূত্রনালিতে সংক্রমণ।
•    মূত্রনালি হতে পুঁজের মতো বের হয়।
•    প্রস্রাব করতে কষ্ট হয়, জ্বালাপোড়া করে এবং প্রস্রাব বন্ধ হয়ে যেতে পারে৷
•    হাঁটু বা অন্যান্য গিঁটে ব্যথা করে, ফুলে ওঠে
•    প্রস্রাব করতে কষ্ট হয় এবং এমনকি জটিল অবস্থায় প্রস্রাব বন্ধ হয়ে যেতে পারে৷
•    পুরুষত্বহীন হয়ে যেতে পারে৷

মহিলাদের ক্ষেত্রে
•    অনেকসময় মহিলাদের কোনও লক্ষণ নাও দেখা যেতে পারে৷
•    যোনিপথ আক্রান্ত হতে পারে৷
•    যোনিপথে এবং মূত্রনালিতে জ্বালা-পোড়া করে৷
•    পুঁজ সদৃশ হলুদ স্রাব বের হয়৷
•    তলপেটে ব্যথা হতে পারে৷
•    ঋতুস্রাব সংক্রান্ত সমস্যা দেখা দিতে পারে৷
•    বন্ধ্যা হয়ে যেতে পারে৷

চিকিৎসা:
লক্ষণ প্রকাশের সঙ্গে সঙ্গে ডাক্তারের সঙ্গে যোগাযোগ করতে হবে৷ ডাক্তারি পরামর্শ অনুযায়ী ওষুধ সেবন করতে হবে৷ নাহলে পরবর্তী সময়ে নানা জটিলতা দেখা দিতে পারে৷
 

প্রতিরোধ:
•    যৌনমিলনে কনডম ব্যবহার করতে হবে৷
•    মহিলাদের মাসিকের সময় পরিষ্কার কাপড় এবং প্যাড ব্যবহার করতে হবে৷
•    স্বামী বা স্ত্রী একজন অসুস্থ হলে দুজনেরই চিকিৎসা করাতে হবে৷
•    স্বামী বা স্ত্রী ছাড়া অন্য কোনও নারী বা পুরুষের সঙ্গে দৈহিক মিলন অনুচিত৷
•    যৌনমিলনে স্বামী-স্ত্রীর বিশ্বস্ততা জরুরি৷

পরামর্শ:
গনোরিয়ায় সংক্রমণ হওয়ার পর কোনও পুরুষ যদি তার স্ত্রী সঙ্গে সহবাস করে তবে স্ত্রীকেও চিকিৎসা করাতে হবে৷ গর্ভবতী মহিলাদের গনোরিয়া থাকলে প্রসবের আগেই চিকিৎসা করাতে হবে৷ অন্যথায় শিশুর চোখে সংক্রমণ হতে পারে এবং শিশু অন্ধ হয়ে যেতে পারে৷